ঢেঁড়শের গোড়া ও কান্ড পঁচা রোগ ও ব্যবস্থাপনা

রোগের নাম: গোড়া ও কান্ড পঁচা (Foot and stem rot) রোগ

রোগের কারণ: ম্যাক্রোফোমিনা ফেসিওলিনা (Macrophomina phaseolina) নামক ছত্রাকের আক্রমণে এ রোগ হয়ে থাকে।

রোগের বিস্তার:

রোগটি বীজ, মাটি ও বায়ু বাহিত। উষ্ম ও আর্দ্র আবহাওয়া, অতিরিক্ত নাইট্রোজন ও কম পটাশ সার ব্যবহার করলে এ রোগের প্রকোপ বেশী হয়। মাটির উষ্ণতা (৪০ ডিগ্রি সেঃ) বেশী হলেও রোগ বেশী হয়।

রোগের লক্ষণ

সাধারণতঃ মে মাসের দিকে এই রোগ দেখা যায় এবং জুন-জুলাই মাসে মারাত্মক আকার ধারণ করে। মাটি সংলগ্ন গাছের গোড়া নরম হয়ে পঁচে যায়। আক্রান্ত শিকড়ে ও কান্ডে কাল বিন্দুর ন্যায় পিকনিডিয়া দেখা যায়। রোগ বিকাশের অনুকুল অবস্থায় ২-৩ দিনের মধ্যে সম্পূর্ন গাছ শুকিয়ে যায়।

প্রতিকার:

সুস্থ বীজ বপন করতে হবে।
শস্য পর্যায় অবলম্বন করতে হবে।
মৌসুমের শুরুতেই ক্ষেতের গাছ শিকড়সহ উঠিয়ে পুড়ে ফেলতে হবে।
বর্ষার আগে অর্থাৎ ফেব্রুয়ারি-মার্চ মাসের মধ্যে ঢেঁড়শের বীজ বপন করতে হবে।
রোগ প্রতিরোধী জাত যেমন-বারি ঢেঁড়শ ১ চাষ করতে হবে।
কার্বেন্ডাজিম গ্রুপের ছত্রাকনাশক (যেমন-অটোস্টিন) অথবা কার্বোক্সিন + থিরাম গ্রুপের ছত্রাকনাশক (যেমন-প্রোভ্যাক্স ২০০ ডব্লিউপি) প্রতি কেজি বীজে ২.৫ গ্রাম হারে মিশিয়ে শোধন করতে হবে।
মেনকোজেব গ্রুপের ছত্রাকনাশক (যেমন-ডাইথেন এম ৪৫) প্রতি লিটার পানিতে ২ গ্রাম হারে অথবা কপার অক্সিক্লোরাইড গ্রুপের ছত্রাকনাশক (যেমন-সানভিট ৫০ ডব্লিউপি) প্রতি লিটার পানিতে ৫ গ্রাম হারে মিশিয়ে ৭ দিন পর পর ২-৩ বার স্প্রে করতে হবে।

লেখক: উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা (উদ্ভিদ রোগতত্ত্ব) মসলা গবেষণা কেন্দ্র, বিএআরআই, শিবগঞ্জ, বগুড়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *