আমনের অধিক ফলন পেতে যা করতে হবে

মাঠে আমন ধানের বীজতলা ও জমি তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা। তবে আমন ধানের ভালো ফলন পেতে হলে অবশ্যই কৃষককে সঠিক পরিচর্যার মধ্যে দিয়ে যেতে হবে।

এ বিষয়ে কৃষি তথ্য সার্ভিসের পরিচালক কৃষিবিদ কার্তিক চন্দ্র চক্রবর্তী জানান, আমন ধান চাষে সফল হতে হলে শুরুতে জাত নির্বাচন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বিভিন্ন জাতের ধান রয়েছে, কৃষককে সঠিক জাতটি বেছে নিতে হবে। আমন ধানের অধিক ফলন পেতে ধাপে ধাপে যত্ন নিতে হবে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র জানায়, চলতি বছরে বীজতলার লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১ লাখ ৮৭ হাজার ১০৬ হেক্টর। এখন পর্যন্ত ১ লাখ ২ হাজার ৫২৯ হেক্টর জমিতে বীজতলা তৈরি করা হয়েছে। মূলত তিন জাতের আমন ধানের চাষাবাদ করা হয় দেশে। এগুলো হলো হাইব্রিড, উফশী ও স্থানীয় জাত।

আমন ধানের যত্নের বিষয়ে কৃষি তথ্য সার্ভিস জানায়, শ্রাবণ মাস আমন ধানের চারা রোপণের ভরা মৌসুম। চারার বয়স ৩০ থেকে ৪০ দিন হলে জমিতে রোপণ করতে হবে।

জাত পরিচিতি

রোপা আমনের আধুনিক এবং উন্নত জাতগুলো হলো : বিআর-৩, বিআর-৮, বিআর-৫, বিআর-১০, বিআর-২২, বিআর-২৩, বিআর-২৫, ব্রি ধান-৩০, ব্রি ধান-৩১, ব্রি ধান-৩২, ব্রি ধান-৩৩, ব্রি ধান-৩৪, ব্রি ধান-৩৭, ব্রি ধান-৩৮, ব্রি ধান-৩৯, বিনাশাইল, নাইজারশাইল, বিনাধান-৪।

উপকূলীয় অঞ্চলে সম্ভাব্য ক্ষেত্রে উপযোগী উফশী জাতের (ব্রি ধান-৪০, ব্রি ধান-৪১, ব্রি ধান-৪৪, ব্রি ধান-৫৩, ব্রি ধান-৫৪, ব্রি ধান-৫৬, ব্রি ধান-৫৭, ব্রি ধান- ৬২) চাষ করা যেতে পারে।

খরা প্রকোপ এলাকায় নাবি রোপা আমনের পরিবর্তে যথাসম্ভব আগাম রোপা আমন (ব্রি ধান-৫৩, ব্রি ধান-৫৪) চাষ করা যেতে পারে। একইসঙ্গে জমির এক কোনে গর্ত করে পানি ধরে রাখার ব্যবস্থা করতে হবে। আমন ধানের ক্ষেতে সুষম সার প্রয়োগ করতে হবে। এজন্য জমির উর্বরতা অনুসারে রাসায়নিক সার প্রয়োগ করতে হবে।

আমন ধান চাষে সারের ব্যবহার

ইউরিয়া ছাড়া অন্যান্য সার শেষ চাষের সময় জমিতে প্রয়োগ করতে হবে। চারা রোপণের ১২ থেকে ১৫ দিন পর প্রথমবার ইউরিয়া সার ক্ষেতে অতিরিক্ত প্রয়োগ করতে হবে। প্রথম প্রয়োগের ১৫ থেকে ২০ দিন পর দ্বিতীয়বার এবং তার ১৫ থেকে ২০ দিন পর তৃতীয়বার ইউরিয়া সার প্রয়োগ করতে হবে।

গুটি ইউরিয়া ব্যবহার করলে চারা লাগানোর ১০ দিনের মধ্যে প্রতি চার গুছির জন্য ১৮ গ্রামের ১টি গুটি ব্যবহার করতে হবে। এজন্য চারা লাইনে রোপণ করতে হবে।

পোকা নিয়ন্ত্রণের জন্য ধানের ক্ষেতে বাঁশের কঞ্চি বা ডাল পুঁতে দিতে হবে। যাতে পাখি বসতে পারে এবং এসব পাখি পোকা ধরে খেতে পারে।