জমিতে কতটুকু সার দিবেন তা জানাবে সফটওয়্যার

ফসলি জমিতে কোন সার কি পরিমাণে দিতে হবে অনেক সময় চাষীরা বুঝে উঠতে পারে না। যার ফলে সার কম বা বেশি মাত্রায় প্রয়োগের ফলে ফলনও আশানুরুপ পাওয়া যায় না। তাই এসব সমস্যার সমাধানে চাষীদের জন্য সার প্রয়োগ নির্দেশিকা সফওয়্যার পদ্ধতি চালু করেছে মৃত্তিকা সম্পদ ‍উন্নয়ন ইনস্টিটিউট।

মাটির পুষ্টিমানের তথ্য, ফসলের পুষ্টি চাহিদা ও সারে পুষ্টি উপাদানের পরিমাণ বিশ্লেষণ করে সার প্রয়োগের নির্দেশিকা দিচ্ছে অনলাইন ফার্টিলাইজার রিকমেন্ডেশন সিস্টেম (ওএফআর) সফটওয়্যারটি।

মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক কৃষিবিদ বিধান কুমার ভান্ডার জানান, সফটওয়্যারটি ব্যবহার করে কৃষকেরা অনেক বেশি উপকৃত হচ্ছেন। দিন দিন ব্যবহারকারীর সংখ্যাও বাড়ছে। আমরা প্রতিনিয়ত সফটওয়্যারটি আপডেট করছি।

তিনি আরো জানান, সফটওয়্যারটি ব্যবহার করে জমির অবস্থান (জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন) ভূমি শ্রেণি ও ফসল নির্বাচন করে নির্বাচিত ফসলের জন্য সারের যাবতীয় তথ্য জানতে পারবেন একজন চাষী। দীর্ঘ পাঁচ বছরের গবেষণায় সফটওয়্যারটি উদ্ভাবনে সফলতা পেয়েছেন মৃত্তিকা বিজ্ঞানীরা।

মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তারা জানান, বাংলাদেশে মাটির নমুনা পরীক্ষা করে অনলাইনের মাধ্যমে সার প্রয়োগের নির্দেশিকা সম্পূর্ণ একটি নতুন ধারণা। বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলের (বিএআরসি) ফার্টিলাইজার রিকমেন্ডেশন গাইড অনুসারে সার্ভারে রাখা মাটির তথ্য ভাণ্ডার থেকে নির্বাচিত এলাকার মাটির নমুনা বিশ্লেষণ করে ওই সফটওয়্যার তাৎক্ষণিক সারের সুপারিশ বা নির্দেশিকা দেবে।

চাষীরা সরাসরি www.frs-bd.com অথবা www.srdi.gov.bd ওয়েবসাইটের OFRS সংযোগে গিয়ে স্থান ও ফসল নির্বাচন করে এই সেবা পাচ্ছেন। এছাড়া ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্র থেকে এ বিষয়ে তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। সেখানে কৃষকের নাম, কোন এলাকার জমি, কী ফসল জমিতে রয়েছে এসবসহ কিছু প্রাসঙ্গিক তথ্য জানতে চাওয়া হয়। সব তথ্য দিয়ে সার্চ বাটনে ক্লিক করলেই পরামর্শ সামনে চলে আসবে।

মৃত্তিকা সম্পদ ইনস্টিটিউট সূত্র জানায়, সফটওয়্যারটি ব্যবহার করে কৃষকের কাছে সার সুপারিশ সেবা পৌঁছে দেওয়ার জন্য ২০০৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসে পরীক্ষামূলকভাবে ৩০টি উপজেলায় কার্যক্রম চালু করা হয়। এরপর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর ও কৃষি তথ্য সেবা কেন্দ্র তাদের সেবা বিতরণ প্রক্রিয়ায় এই সফটওয়্যার ব্যবহার করে সেবা দেওয়া শুরু করে।

এরপর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই কাজটির সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়। সবশেষে ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্র (ইউআইএসসি) এই সেবা কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত হয়। বর্তমানে দেশজুড়ে সেবাটি কৃষকের দোরগোড়ায় রয়েছে।

সফটওয়্যারটি ব্যবহারের উপকারিতা হিসেবে মৃত্তিকা বিজ্ঞানীরা বলছেন, ফসল ভেদে শতকরা ২০ থেকে ৩০ ভাগ ফলন বাড়বে। এছাড়া গাছের স্বাস্থ্য ভালো থাকবে। এর ফলে রোগ বালাই ও পোকার আক্রমণ কম হচ্ছে। উৎপাদন খরচ কমার পাশাপাশি মাটির স্বাস্থ্যও ভালো থাকছে। আর উৎপাদিত ফসলের মানও ভালো হয়ে থাকে বলে কৃষকরা মত দিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *