সহজ উপায়ে তৈরি করুন টবের মাটি

ছাদের টবে গাছ লাগানোর পরিমাণ দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিশেষ করে শহুরে জীবনে অনেকেই টবে করে ছাদে বিভিন্ন ধরনের গাছ লাগাচ্ছেন। বাগান তৈরি করছেন। তবে টবে গাছ লাগানোর আগে এর জন্য মাটি প্রস্তুত করতে হবে। এবার জেনে নিন টবের মাটি প্রস্তুতের নিয়ম।

মাটির মিশ্রণ: আপনার সংগৃহীত মাটি যদি এঁটেল (শক্ত মাটি) হয়, তাতে বালি মাটি মেশাতে হবে। আর মাটি যদি বেশি বেলে হয়, তাতে এঁটেল মাটি মেশাতে হবে। মোট কথা যেকোনো প্রকার মাটিকে দো-আঁশ মাটিতে রূপান্তর করতে হবে। মাটি ঝুরঝুরে হলেই তা দো-আঁশ মাটি হয়েছে বুঝবেন।

জৈব সার মিশানো: মাটি এঁটেল বা বেলে হোক, উভয়ক্ষেত্রে প্রচুর পরিমাণে জৈব সার মেশাতে হবে। স্বাভাবিক মাটির সঙ্গে কমপক্ষে চারভাগের একভাগ জৈবসার মেশাতে হবে। এতে করে মাটিতে অবস্থিত জীবাণু সক্রিয় থাকবে।

এঁটেল বা বালি মাটি হলে এই পরিমাণ আরও বাড়াতে হবে। মাটির অর্ধেক পরিমাণ হলে ভালো হয়। জৈব সার হিসেবে ভার্মিকম্পোস্ট সবচেয়ে ভালো। বাড়িতে তৈরি আবর্জনা পচা সার বা পচা গোবর সারও দেওয়া যায়।

মাটি শোধন করা: মাটি তৈরির সময় শোধনের কাজটি সেরে নেওয়া যেতে পারে। এজন্য উপরে উল্লেখিত পরিমাণ মাটির সঙ্গে ১০ গ্রাম (১.০-১.৫ চা চামচ) হারে দানাদার কীটনাশক এবং কার্বেন্ডাজিম গ্রুপের ছত্রাকনাশক মিশিয়ে দেওয়া যেতে পারে।

এতে করে নেমাটোড বা কৃমি এবং ছত্রাক দমন করা সম্ভব হবে। দানাদার কীটনাশকের পরিবর্তে জৈব কীটনাশক বায়োডার্মা সলিড প্রয়োগ করা যেতে পারে।

সেক্ষেত্রে প্রতি কেজি ভার্মিকম্পোস্টের সঙ্গে ১-২ গ্রাম হারে বায়োডার্মা মিশিয়ে ১৫ দিন রেখে দিতে হবে। পনের দিন পর সার মিশ্রিত মাটির সঙ্গে বায়োডার্মা মিশ্রিত ভার্মিকম্পোস্ট মেশাতে হবে।

এভাবে আদর্শ মাটি তৈরি করা যেতে পারে। সময় হাতে থাকলে এভাবে মাটি তৈরি করে চারা লাগানো ভালো। হাতে সময় না থাকলে শুধুই জৈব সার মিশিয়ে চারা লাগানো যায়। সেক্ষেত্রে নিয়মিতভাবে সঠিকমাত্রায় সার প্রয়োগ করতে হবে।