সুজানগরের চরাঞ্চলে আগাম পেঁয়াজের আবাদে বাম্পার ফলন

সুজানগর (পাবনা) সংবাদদাতা: পাবনার সুজানগরের চরাঞ্চলের জমিতে আগাম আবাদ করা (মূলকাটা) পেঁয়াজের এবার বাম্পার ফলন হয়েছে। এতে পেঁয়াজ চাষীদের মুখে হাসি দেখা দিয়েছে।

সরেজমিন চরাঞ্চল ঘুরে দেখা যায়, বিশাল বিস্তীর্ণ চরাঞ্চল জুড়ে কেবল আগাম আবাদ করা (মূলকাটা) পেঁয়াজ আর পেঁয়াজ। মাঝে মধ্যে অন্য ফসল আবাদ করা হলেও তার পরিমাণ খুবই কম।

উপজেলা কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, এ বছর উপজেলায় ১‘শ ৫০হেক্টর জমিতে আগাম পেঁয়াজ আবাদ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে চরাঞ্চলে আবাদ করা কিছু কিছু জমির পেঁয়াজ তোলা শুরু হয়েছে। আগামী ১০/১৫দিনের মধ্যে গোটা চরা লের জমির পেঁয়াজ তোলা শুরু হয়ে যাবে। উপজেলার গোপালপুর গ্রামের কৃষক বিল্লাল হোসেন বলেন বর্ষার পানিতে চরা লের জমিতে পলি জমে মাটির উর্বর শক্তি বৃদ্ধি পাওয়ায় অধিকাংশ জমিতে পেঁয়াজের বাম্পার ফলন হয়েছে। বর্তমানে হাট-বাজারে পেঁয়াজের বাজারও বেশ ভাল।

উপজেলার চরখলিলপুর গ্রামের কৃষক সিরাজুল ইসলাম বলেন ১ বিঘা জমিতে আগাম পেঁয়াজ আবাদ করতে তার সার, বীজ ও শ্রমিকসহ উৎপাদন খরচ হয়েছে ২০ থেকে ২২ হাজার টাকা। আর প্রতি বিঘা জমিতে পেঁয়াজ উৎপাদন হয়েছে ৩০ থেকে ৩৫মণ। বর্তমানে হাট-বাজারে প্রতি মণ আগাম পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১২ থেকে ১৩‘শ টাকা দরে। সে হিসাবে ১বিঘা জমিতে উৎপাদিত পেঁয়াজের মূল্য ৪০ থেকে ৪৫ হাজার টাকা যা, উৎপাদন খরচের চেয়ে অনেক বেশি। ফলে কৃষকরা পেঁয়াজের বর্তমান এ বাজারে ভীষণ খুশি।

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ ময়নুল হক সরকার বলেন, অন্যান্য বছরের চেয়ে এ বছর আগাম আবাদ করা পেঁয়াজের ফলন হয়েছে বেশ ভাল। তাছাড়া দামও খারাপ না। ফলে চরাঞ্চলের প্রতিটি কৃষকের মুখে হাসি দেখা দিয়েছে।